হিজরী সনের ইতিহাস

হিজরী সনের ইতিহাস – আপনি কোনো একটা ঘটনা বর্ণনা করতে হলে প্রথমেই বলতে হবে, কবে ঘটেছিল ঘটনাটি? কোন বছর কিংবা কোন মাস? অথবা কোন তারিখ? এই তিনটি তথ্য লাগবেই। এ ছাড়া আপনি সামনে অগ্রসর হতে পারবেন না।

পৃথিবীর শুরুতে মানুষ সন-তারিখ ব্যবহার করতো না। কারণ, তখনো সন আবিষ্কার হয় নি। মানুষ তখন তারিখ বলার জন্য বড় কোনো যুদ্ধ কিংবা প্রসিদ্ধ কোনো ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনার দিকে ইঙ্গিত করে বলতো।

যেমন,

ধরা যাক, সুফরা ট্রাজেডি নামে একটা দুর্ঘটনা ঘটলো। এতে অনেক মানুষ মারা গেল। এখন এই সুফরা ট্রাজেডির কয়েকদিন পরে কারো দাদা মারা গেল।

বছরখানেক পর যখন তাকে কেউ জিজ্ঞাসা করবে, তোমার দাদা কবে মারা গেছে? তখন সে বলবে, সুফরা ট্রাজেডির কয়েকদিন পর।

হিজরী সনের ইতিহাস

প্রাচীন আরব চন্দ্রবর্ষ

আরবে চন্দ্রবর্ষের প্রচলন ছিল বহু আগ থেকেই। মানুষ ধর্মীয় উৎসব ও অন্যান্য দিনগুলো সেই তারিখ ফলো করে পালন করতো। কিন্তু এই তারিখগুলো একত্র করে কোনো বছর গঠন করা হয় নি।

অর্থাৎ মানুষ তখন শুধু তারিখ ও মাস গণনা করতো। কিন্তু বছর গণনা করতো না।

যেমন কেউ আপনাকে চিঠি লিখলো এবং তার নিচে তারিখ দিল এভাবে,

১ শাওয়াল। আপনি এই এক শাওয়াল দ্বারা কি বুঝবেন? এটা অবশ্যই বুঝতে পারবেন যে, এটা দ্বারা এ শাওয়াল উদ্দেশ্য করা হয়েছে।

কিন্তু এটা কি বুঝতে পারছেন যে, কোন মাসের এক শাওয়াল এখানে উদ্দেশ্য করছে?

এমন একটা অসুবিধার সৃষ্টি হয়েছিল হযরত ওমর রা. এর যামানায়।

ওমর রা. এর যামানায় হিজরী সনের সূচনা

এবার আসি কবে থেকে হিজরী সনের ইতিহাস শুরু হয়?

হযরত ওমর রা. এর খেলাফতকালে আরবরা সর্বপ্রথম বহির্বিশ্বে অভিযান পরিচালনা করে। তখন সরকারি কাগজপত্রে এবং হিসাবপত্রে একটা গড়মিল দেখা দেয়।

যেহেতু নির্দিষ্ট কোনো সন ছিল না। তাই কাগজে লেখা থাকতো, জিলহজ্জ মাসের ১২ তারিখ বা এমন কিছু একটা।

এখানেই সমস্যাটা হয়। এই জিলহজ্জ মাস কোন বছরের জিলহজ্জ, তা কিন্তু বুঝার উপায় ছিল না।

তখন ওমর রা. হযরত আবু মুসা আশআরী রা. এর নিকট পত্রপ্রেরণ করেন যে,

আপনার এমন কিছু পত্র আমার নিকট হস্তগত হয়েছে যে, যাতে কোনো তারিখ নেই।

এদিকে আবার ইয়ামেন থেকে এক ব্যক্তি ওমর রা. এর নিকট আসলো। তিনি তখন বললো, ইয়ামেনিরা তাদের চিঠিতে একটা তারিখ লেখে। আপনারাও অনুরূপ তারিখ লিখুন। ­

এদিকে আবার একটা পত্র আসে ওমর রা. এর নিকট। যাতে শুধু শাবান মাস লেখা ছিল।

ওমর রা. বললেন, এটা আমি কিভাবে জানবো যে, এটা কোন বছরের শাবান?

সাহাবাদের সাথে পরামর্শ

সে সময় ওমর রা. সাহাবাদেরকে বললেন, মানুষের গণনার জন্য একটা সময় নির্ধারণ করে দিন। যাতে তারা সময় গণনা করতে পারে।

কয়েকজন সাহাবা বললেন, রোমানদের তারিখ গণনা করুন।

ওমর রা. বললেন, তাদের তারিখ অনেক দীর্ঘ। তারা সিকান্দারের সময় থেকে তারিখ গণনা করে।

কেউ বললো, পারসিকদের তারিখ নির্ধারণ করা যায়। এটাও প্রত্যাখ্যাত হলো।

অবশেষে  মজলিসে সিদ্ধান্ত হলো, একটি পৃথক পঞ্জিকা নির্ধারণ করা হবে। তখন আবার প্রশ্ন আসে, কবে, কখন ও কোথা থেকে এর গণনা শুরু হবে?

নবীজির জন্ম থেকে? নবীজির হিজরত থেকে নাকি নবীজির ওফাত থেকে?

উমর রা. বললেন, হিজরত থেকেই পঞ্জিকার সূচনা হবে। কারণ, এর মাধ্যমেই হক-বাতিলের মাঝে পার্থক্য চূড়ান্ত হয়।

সিদ্ধান্ত হয় হিজরত থেকে এর পঞ্জিকা গণনা করা শুরু হবে। কিন্তু এখানে একটা সমস্যা বাঁধে।

আরবী মাস শুরু হয় মহররম থেকে। হিজরত হয়েছিল, রবিউল আউয়াল মাস থেকে।

তখন উসমান রা. বললেন, মহররম থেকে বছর গণনা করা উচিৎ। কারণ, এটা সম্মানিত মাস।

সবাই এটাকে প্রথম মাস হিসেবে জানে। আর এই মাসেই লোকেরা হজ্জ থেকে ফিরে আসে।

শেষ পর্যন্ত উসমান রা. হিজরতের সময় থেকে বছর গণনা শুরু করেন এবং তা মহররম মাস থেকে শুরু হয়।

তথ্যসুত্র

১. মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস। ইসমাইল রেহান। মাকতাবাতুল ইত্তিহাদ। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ৭২

২. প্রাগুক্ত। মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস বইয়ের রেফারেন্স অনুযায়ী, আশ শামায়িখ। পৃষ্ঠা ১৪-১৫

৩. মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ৭২

৪. মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ৭৩

মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস বইয়ের রেফারেন্স অনুযায়ী, আশ শামায়িখ। পৃষ্ঠা ১১

৫. মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ৭৩-৭৪

আরো পড়ুন

মক্কী ক্যালেন্ডার কি?

মাদানী ক্যালেন্ডার কি?

FAQ

হিজরী সন কে প্রবর্তন করেন?

হযরত ওমর রা. ।

হিজরী সন চন্দ্রবর্ষ নাকি সৌরবর্ষ?

চন্দ্রবর্ষ

হিজরী সন কবে থেকে গণনা করা হয়?

নবীজির হিজরত থেকে।

আমি একজন ইসলামিক আলোচক, লেখক। ছোটবেলায় পড়ালেখা করেছি কওমী মাদ্রাসায়। পরবর্তীতে সাইন্স বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে কৃতিত্বের সাথে পাশ করি। বর্তমানে আমি ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ অধ্যায়নরত। অবসরে আমি বই পড়তে পছন্দ করি। নতুন কিছু শিখতে, নতুন কিছু জানতে ভালোবাসি। আমার ইচ্ছা, ভালো মানুষ হয়ে সমাজকে সৎ কাজের আদেশ ও অসৎ কাজে বিরত রাখার চেষ্টা করা।

https://www.arhasan.com