গাজ্জার জন্য অনুদান

৭ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে তুফানুল আকসা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জায় অসংখ্য মানুষ আহত ও শহীদ হয়েছে। বহু মানুষ নিজেদের ঘর-বাড়ী হারিয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে গাজ্জার ৯৮% মানুষ অনাহারে জীবন-যাপন করছে। গাজ্জার মানুষের এই দুঃসময়ে আমরা যদি তাদের পাশে না দাঁড়াই তাহলে কে দাঁড়াবে?

আর-রিহলাহ ফাউন্ডেশন তুফানুল আকসা যুদ্ধের শুরু থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জার জন্য ডোনেশন সংগ্রহ করে আসছে। এই মহান কাজে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন।

অনুদান দিন

হযরত ওসমান রা. কূপ – যখন নবীজি সা. মদীনায় আসেন তখন মদীনায় পানির সংকট ছিল অনেক। সেই সময়ে মদীনায় রুমা কূপের পানি ছিল মিষ্ট এবং খাওয়ার উপযোগী।

নবীজি সা. তখন সাহাবীদেরকে বললেন, যেই ব্যক্তি এই রুমা কূপ কিনে মুসলমানদের জন্য উন্মুক্ত করে দিবে, সে জান্নাতে এর চেয়ে উত্তম বিনিময় পাবে।

রুমা কূপের মালিক

মিষ্ট পানির এই রুমা কূপটি ছিল একজন সাহাবীর। তার নাম রুমা ইবনে গিফারী রা.।

তিনি এই কূপের পানি প্রতি মশক এক মুদের বিনিময়ে বিক্রি করতো।

মুদ বলা হয়, সে সময়ের আরবের একটি পরিমাপক একককে। নবীজি সা. তখন রুমা রা. কে বললেন, তুমি কি কূপটি জান্নাতের বিনিময়ে বিক্রি করবে?

উক্ত সাহাবী তখন বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! আমার ও আমার সন্তানদের জন্য এটা ছাড়া আয়ের ভিন্ন কোনো উৎস নেই।

উসমান রা. এর রুমা কূপ ক্রয়

হযরত উসমান রা. যখন জানতে পারলেন যে, রুমা কূপ উক্ত ব্যক্তি বিক্রি করবে না।

পড়ুন: রমজান মাসের গুরুত্ব ও ফজিলত

তখন তিনি তার নিকট থেকে ৩৫ হাজার দিরহামের বিনিময়ে কূপটি ক্রয় করে নেন। যা (১৫/০৩/২৩) বাংলাদেশি টাকায় 15,435,000৳ টাকা। আর মার্কিন ডলারে 146282.96$ ডলার।

উসমান রা. উক্ত কূপ ক্রয় করার পর নবীজির নিকট এসে বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! আমি যদি কূপটি কিনে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেই, তাহলে কি আমার জন্যও সেই অঙ্গীকার থাকবে?

নবীজি বললেন, হ্যাঁ। তোমার জন্যও তা থাকবে। উসমান রা. তখন বললেন, তাহলে আমি  কূপটি মুসলমানদের জন্য উন্মুক্ত করে দিলাম।

হযরত ওসমান রা. কূপ
হযরত ওসমান রা. কূপ

বর্তমান সময়ে রুমা কূপ

আল্লাহ তা’আলা হযরত উসমান রা. এর দান কবুল করেছেন। তিনি আজো এই কূপ বহমান রেখেছেন। এখনো এই কূপে পানি আছে।

কূপটির পাশে একটি বাগান আছে। সেটিও উসমান রা. ক্রয় করে নিয়েছিলেন।

সৌদি মন্ত্রনালয় উক্ত স্থানটিকে যদিও প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত রেখেছে, তারপরও সেই বাগানে এখনো উক্ত কূপ থেকে পানি দেয়া হয়।

পড়ুন: অমুসলিম দেশে কি বসবাস করা উচিৎ?

উসমানী খেলাফতকালের শাসক ও বর্তমান সৌদি শাসকদের পরিচর্যায় এখানে প্রায় ১৬০০ খেজুর গাছ আছে।

প্রতি বছর এই বাগানের খেজুর বিক্রির পর তার অর্ধেক মূল্য এতিম ও গরীবদের মাঝে বিতরণ করা হয়।

তথ্যসুত্র

উসমান ইবনে আফফান, পৃষ্ঠা ৭১

আওয়ার ইসলাম ২৪ ডট কম, ৩০ মে ২০১৭

দিনার ও দিরহামের বর্তমান মূল্য তালিকা

সময় নিউজ ডট টিভি, ৩ মার্চ ২০২১

FAQ

বীর রুমা কি?

বীর রুমা বা রুমা কূপ হলো নবীজির হিজরতের পর মদীনায় একমাত্র মিষ্ট পানির কূপ। এটি তখন রুমা বিন গিফারী রা. এর অধীনে ছিল। তিনি এর পানি বিক্রি করতেন।

রুমা কূপ কোথায় অবস্থিত?

রুমা কূপ মদীনায় অবস্থিত

রুমা কূপ কত টাকা দিয়ে উসমান রা. ক্রয় করেন?

৩৫ হাজার দিরহামের বিনিময়ে উসমান রা. কূপটি ক্রয় করে নেন। যা (১৫/০৩/২৩) বাংলাদেশি টাকায় 15,435,000৳ টাকা। আর মার্কিন ডলারে 146282.96$ ডলার।

গাজ্জার জন্য অনুদান

৭ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে তুফানুল আকসা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জায় অসংখ্য মানুষ আহত ও শহীদ হয়েছে। বহু মানুষ নিজেদের ঘর-বাড়ী হারিয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে গাজ্জার ৯৮% মানুষ অনাহারে জীবন-যাপন করছে। গাজ্জার মানুষের এই দুঃসময়ে আমরা যদি তাদের পাশে না দাঁড়াই তাহলে কে দাঁড়াবে?

আর-রিহলাহ ফাউন্ডেশন তুফানুল আকসা যুদ্ধের শুরু থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জার জন্য ডোনেশন সংগ্রহ করে আসছে। এই মহান কাজে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন।

অনুদান দিন

Scroll to Top