সিনা চাকের ঘটনা

সিনা চাকের ঘটনা – শৈশবে নবীজি হালিমার বাড়িতে লালিত-পালিত হন। সেখান থেকেই তিনি বিশুদ্ধ আরবী ভাষা শিখেন। নবীজি সা. বলতেন, আমার ভাষা তোমাদের সবার চেয়ে সুন্দর।

নবীজির ভাষার মাধুর্যতা আমরা হাদীসের গ্রন্থগুলোতে দেখতে পাই। একেকটি হাদীসের অলংকার প্রতিটি আরবী ভাষাভাষী ব্যক্তিকেই মুগ্ধ করবে।

সিনা চাকের ঘটনা

হালিমার বাড়িতে

নবীজিকে বিবি হালিমা দুই বছর বয়স পর্যন্ত লালন-পালন করলেন। এই দুই বছরে তিনি অসংখ্য বরকত এবং আশ্চর্যজনক জিনিষ অবলোকন করেছেন।

তৎকালীন আরবের রীতি ছিল, শিশুর দুই বছর হয়ে গেলে ধাত্রীরা তার মায়ের নিকট দিয়ে আসতো। সেই পরিপ্রেক্ষিতে নবীজিকে নিয়ে হালিমা মক্কায় আসলেন।

সন্তানকে পেয়ে নবীজির মা আমেনা অত্যন্ত খুশী হলেন। সন্তানকে চুমু খেতে লাগলেন। তখন হালিমা বললো,

এই বরককতময়  শিশুকে আমি হারাতে চাচ্ছি না। আপনি যদি চান, তাহলে আরো কিছুদিন সে গ্রামাঞ্চলে থাকুক। তাহলে হয়তো সে আরো পুষ্টিলাভ করবে।

বারবার আবদার করার পর মা আমেনা তার সন্তানকে হালিমার কোলে তুলে দিলেন।

খেলাধূলা

নবীজি শৈশবে হালিমার বাড়ির আশেপাশে তার সাথিদের সাথে খেলতেন। সাথী হিসেবে ছিল তার দুধভাই ও আশেপাশের অনান্যরা।

যখন তার বয়স ৪ অথবা ৫ বছর তখনই সিনা চাকের ঘটনাটি ঘটে। সিনা চাক হলো, একটি সুক্ষ্ম অপারেশনের মাধ্যমে তার অন্তরকে বের করে আবার প্রতিস্থাপন করা।

আমরা হাদীসের মাধ্যমেই বিস্তারিত জানার চেষ্টা করি।

কিভাবে সিনা চাক করা হলো?

সিনা চাকের ঘটনা – নবীজি অন্যান্য দিনের মতোই সাথীদের সাথে খেলছিলেন। এমন সময় সেখানে জিবরাইল আ. আসলেন।

তিনি শিশু মুহাম্মাদকে শুইয়ে তার বুক ছিঁড়ে ফেললেন।

এরপর সেখান থেকে তার কলিজা বের করে পবিত্র পানি দ্বারা ধৌত করলেন। তখন জিবরাইল আ. তাকে বললেন,

এটা তোমার মধ্যে শয়তানের অংশবিশেষ।

এদিকে নবীজির খেলার সাথীরা এমন অবস্থা দেখে ভয় পেয়ে গেল। তারা চিৎকার করতে করতে দৌঁড়িয়ে দুধমাতা হালিমার কাছে গিয়ে হাঁপাতে হাঁপাতে বললো,

মুহাম্মাদকে মেরে ফেলা হয়েছে।

এটা শুনে হালিমা এবং তার স্বামী ভয় পেয়ে গেল। তাড়াতাড়ি দৌড়ে মাঠে আসলো তারা। এসে দেখে নবীজি বিমর্ষ হয়ে মাঠের এককোণে বসে আছে।

মায়ের নিকট ফেরৎ

এই ঘটনার পর বিবি হালিমা ভাবলেন, হয়তো এই শিশুর কোনো শত্রু থাকতে পারে। যে তার ক্ষতি করার চেষ্টা করছে।

এহেন পরিস্থিতিতে যদি তাকে এখানে রেখে দেয়া হয়, আর কোনো বিপদ ঘটে তাহলে কোনোভাবেই জবাবদিহিতা করা যাবে না।

তাই তিনি শিশু মুহাম্মাদকে তার মায়ের নিকট মক্কায় দিয়ে আসলেন।

তথ্যসুত্র

১. আর রাহিকুল মাখতুম। সফিউল্লাহ মোবারকপুরী। অনুবাদক: খাদিজা আখতার রেজায়ী। আল কুরআন একাডেমী লন্ডন। পৃষ্ঠা ৭৩

আর রাহিকুল মাখতুম বইয়ের রেফারেন্স অনুযায়ী, সিরাতে ইবনে হিশাম। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ১৬২-১৬৩

২. আর রাহিকুল মাখতুম। পৃষ্ঠা ৭৩

আর রাহিকুল মাখতুম বইয়ের রেফারেন্স অনুযায়ী, সিরাতে ইবনে হিশাম। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ১৬৪

৩. সহীহ মুসলিম।

৪. আর রাহিকুল মাখতুম। পৃষ্ঠা ৭৪

আর রাহিকুল মাখতুম বইয়ের রেফারেন্স অনুযায়ী, সিরাতে ইবনে হিশাম। খণ্ড ১। পৃষ্ঠা ১৬৮

FAQ

নবীজির সিনা চাক কত বছর বয়সে সংগঠিত হয়?

৪ অথবা ৫ বছর বয়সে সংগঠিত হয়।

হালিমা কে ছিলেন?

হালিমা নবীজির দুধমাতা ছিলেন।

আমি একজন ইসলামিক আলোচক, লেখক। ছোটবেলায় পড়ালেখা করেছি কওমী মাদ্রাসায়। পরবর্তীতে সাইন্স বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে কৃতিত্বের সাথে পাশ করি। বর্তমানে আমি ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ অধ্যায়নরত। অবসরে আমি বই পড়তে পছন্দ করি। নতুন কিছু শিখতে, নতুন কিছু জানতে ভালোবাসি। আমার ইচ্ছা, ভালো মানুষ হয়ে সমাজকে সৎ কাজের আদেশ ও অসৎ কাজে বিরত রাখার চেষ্টা করা।

https://www.arhasan.com