বিশ্ব মানবতা আজ কোথায়?

বিশ্ব মানবতা আজ কোথায়? – সারা বিশ্বে মানবতার ফেরি করে চলা আমেরিকার উল্টো পিঠ দেখতে পাচ্ছে সকলেই। যেই আমেরিকা ইরাকে মানবতা প্রতিষ্ঠার নামে অভিযান চালিয়েছিল, সেই আমেরিকাই ইরাকের লাখো শিশুকে হত্যা করেছে।

আফগানিস্তানে বর্বরতা চালানো আমেরিকা বাংলাদেশে যখন শান্তি রক্ষার নামে কাজ করে তখন তা নিতান্তই হাস্যকর দেখায়।

আমেরিকানদের অন্যতম শক্তিশালী গোষ্ঠী হলো, ইহুদি গোষ্ঠী। ইহুদিদের লবি, তাদের অর্থনীতি, ব্যাংক ও কূটচালই আমেরিকাকে বিশ্বের বুকে টিকিয়ে রাখছে।

ইরাক যুদ্ধ থেকে নিয়ে হাল আমলের তুফানুল আকসা, সবখানেই আমেরিকা চিরায়িত বুলি জপে নিরীহ-নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করেছে।

গত অক্টোবরে তুফানুল আকসা শুরুর পর থেকে ১৫০ দিন পার হলেও এখানে আমেরিকার মানবতা বিরোধী স্লোগান জায়োনিস্ট ইসরাইলের উপর নেই।

উল্টো জো-বাইডেনসহ অন্যান্যরা “stay israel” ঘোষণা দিয়ে শান্তিপূর্ণ গাজ্জা ভূমিকে তারা নরকে পরিণত করেছে।

অসহায় মানুষদের ঘর-বাড়ি, বাচ্চাদের স্কুল, কর্পোরেট অফিসগুলোতে লাগাতার বোমা হামলা করে বিশ্বের অন্যতম বর্বরতার দৃশ্য দেখিয়েছে এই জায়োনিস্টরা।

হামাস কয়েকবার বলেছিল, সম্মুখ যুদ্ধে আস। যদি তোমাদের এতটাই মেরুদণ্ড থাকে।

কিন্তু এই ভীতুরা আমেরিকান সৈন্যদের সহায়তায়ও সম্মুখ যুদ্ধে আসতে চায় নি।

তারা বিমান হামলা করছে নিরীহ বেসামরিক লোকদের উপর। বাস্তুচ্যুত মানুষদের তাঁবুর উপর।

গত কিছুদিন আগে আমেরিকান একজন নৌবাহিনীর সদস্য নিউইয়র্কে ইসরাইলের দূতাবাসের সামনে ফিলিস্তিনের পক্ষে আত্মহুতি দেয়।

কিন্তু এই বর্বর আমেরিকা সেই সৈন্যের ব্যাপারে নূন্যতম বিবৃতি তো দূরের কথা, এক নিউজের তথ্যমতে, এমনভাবে সেই সৈন্যের ডাটা আমেরিকা থেকে মুছে ফেলা হয়েছে যে, কখনো হয়তো অ্যারন বুশনেল (সেন্যটির নাম) নামে কেউ ছিল না এই পৃথিবীতে।

সভ্য (!) আমেরিকার এমন অসভ্য কাজ আরো অনেক আছে।

যেই আমেরিকার প্রতিষ্ঠা ই হয়েছে অসভ্যতার সাথে, সেই আমেরিকাকে সভ্য বলা মানুষরা আসলেই মানসিক ভারসাম্যহীন।

গাজ্জার সেই ১০ বছরের শিশুটির কথা মনে আছে? যে ক্ষুধার্ত হয়ে মারা যায় এবং তার দেহ ছিল পুরো কঙ্কাল। মৃত্যুর সময় তার শরীরের ওজন ছিল মাত্র ৫ কেজি।

তুফানুল আকসা যুদ্ধে লাভবান হলো আমেরিকা। তাই তারা অস্ত্র সাপ্লাই দেয় ইসরাইলের কাছে।

গাজ্জার বাতাসে যারা দুর্ভিক্ষের ছোঁয়া লাগিয়েছে, তাদের মৃত্যু কি এত সহজে হবে? কখনোই না।

কঙ্কাল হওয়া শিশুটির বিবরণ – বিশ্ব মানবতা আজ কোথায়?

১০ বছর বয়সী ইয়াজান শরীফ আল-কাফরনা ইহুদিবাদী অবরোধের কারণে Gaza উপত্যকায় দুর্ভিক্ষ গভীর হওয়ার কারণে অপুষ্টিজনিত কারণে আবু ইউসুফ আল-নাজ্জার হাসপাতালে রাফাহতে শাহাদাত বরণ করেন।

আজকে শাহাদাতের সময় তার ওজন ছিল মাত্র ৫ কেজি।

তার মা যোগ করেছেন যে পুষ্টি উপাদান এবং ভাল খাবারের অভাব তার সেরিব্রাল পালসি এর অবনতির একটি সরাসরি কারণ ছিল যতক্ষণ না তার ওজন 5 কিলোগ্রামে পৌঁছায়।

মোহাম্মদ, পরিবারের একজন সদস্য বলেছেন,

“আমরা যুদ্ধের শুরুতে বেইত হানুন শহর থেকে বাস্তুচ্যুত হয়েছিলাম, তারপরে আমরা জাবালিয়া ক্যাম্পে, তারপর গাজা উপত্যকার মাঝখানে আল-নুসিরাত ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছিলাম এবং তারপরে। দক্ষিণ গাজা উপত্যকায় রাফাহ।”

“এই শিশুটির জন্য, যেটি বেশ কয়েকটি রোগে ভুগছিল, যুদ্ধ এসে তাকে জীবন দিতে পারে এমন সমস্ত মৌলিক প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি নিয়ে গেছে। আমরা তার জন্য ওষুধ বা এমন কিছু খুঁজে পাইনি যা তাকে বাঁচিয়ে রাখতে পারত।”

“এই যুদ্ধে ইয়াজান একটি কঙ্কালে পরিণত হয়েছিল। ক্ষুধা তার শরীরে কাঁপছিল। অবরোধ ও যুদ্ধের কারণে আমরা তার জন্য কিছুই দিতে পারিনি।”

ইয়াজানের বিশেষ ওষুধের প্রয়োজন ছিল এবং তার বাবা ওষুধটি খুঁজে পাননি।

তার বিশেষ খাদ্য এবং একটি নির্দিষ্ট পুষ্টি প্রোগ্রাম ছিল, কিন্তু অবরোধ সবকিছু বাধা দেয়।

মোহাম্মদ যোগ করেছেন, “এখানে মৃত্যু অন্য রূপে, ক্ষুধার কারণে মৃত্যু, ওষুধের অভাব, এবং আমরা যে ক্রমাগত সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি।”

মোহাম্মদ বিশ্বকে একটি বার্তা দিয়েছেন: “আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং বিশ্বের মুক্ত মানুষের কাছে আমাদের বার্তা নির্দেশ করছি: আপনি কিসের জন্য অপেক্ষা করছেন?

অন্তত শিশুদের জন্য জীবনের অধিকার নিশ্চিত করুন। আপনি ন্যায়বিচার ও সমতার মানুষ বলে দাবি করেন। আমরা দুর্ভিক্ষ ও দুর্যোগে পৌঁছেছি।’

“ভালোভাবে জেনে রাখুন যে মৃত্যু একটি শেল এবং ক্ষেপণাস্ত্রের আকারে নয়, তবে এটি আমাদের উপর সমস্ত আকারে লুকিয়ে আছে এবং ইয়াজানের সাথে যা ঘটেছে তা একটি ধীর মৃত্যু। গাজার শিশুদের এবং বেসামরিকদের বিরুদ্ধে বর্বর যুদ্ধ বন্ধ করতে হবে।”

গাজ্জার জন্য অনুদান

৭ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে তুফানুল আকসা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জায় অসংখ্য মানুষ আহত ও শহীদ হয়েছে। বহু মানুষ নিজেদের ঘর-বাড়ী হারিয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে গাজ্জার ৯৮% মানুষ অনাহারে জীবন-যাপন করছে। গাজ্জার মানুষের এই দুঃসময়ে আমরা যদি তাদের পাশে না দাঁড়াই তাহলে কে দাঁড়াবে?

আর-রিহলাহ ফাউন্ডেশন তুফানুল আকসা যুদ্ধের শুরু থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জার জন্য ডোনেশন সংগ্রহ করে আসছে। এই মহান কাজে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন।

অনুদান দিন

Scroll to Top