হযরত উসমান রাঃ এর স্ত্রী সন্তানগণ

হযরত উসমান রাঃ এর স্ত্রী সন্তানগণ – উসমান রাঃ সর্বমোট বিয়ে করেছিলেন ৮ টি। আর প্রতিটি বিয়েই হয়েছিল তার ইসলাম গ্রহণের পরে। তার স্ত্রীদের নাম নিচে দেয়া হলো,

স্ত্রীগণ

১. রুকাইয়া বিনতে রাসূল সা.। তার গর্ভে আব্দুল্লাহ রা. নামে একজন পুত্র সন্তান জন্মগ্রহন করেন।

২. উম্মে কুলসুম বিনতে রাসূল সা.। রুকাইয়া রা. এর ইন্তিকালের পরে উসমান রাঃ তাকে বিয়ে করেন।

৩. ফাখতা বিনতে গাজওয়ান রা.। তিনি ছিলেন আমির উতবা ইবনে গাজওয়ানের বোন। তার গর্ভে আব্দুল্লাহ আল আসগার রহ. জন্মগ্রহণ করেন।

৪. উম্মে আমর বিনতে জুনদুব আল আজদিয়া রা.। তার গর্ভে আমর, খালিদ, আবান, উমর ও মারইয়াম রহ. জন্মগ্রহণ করেন।

৫. ফাতিমা বিনতে ওয়ালিদ ইবনে আবদুস শামস। তার গর্ভে ওয়ালিদ, সায়িদ, উম্মু সাআদ রহ. জন্মগ্রহণ করেন।

৬. উম্মুল বানিন বিনতে উয়াইনা রহ.। তার গর্ভে জন্মগ্রহণ করেন আব্দুল মালিক রহ.।

৭. রামলা বিনতে শায়বা রহ.। তার গর্ভে আয়েশা, উম্মে আবান, উম্মে আমর রহ. জন্মগ্রহণ করেন।

৮. নায়লা বিনতে ফুরাফিসা। তিনি বিয়ের সময় খৃষ্টান ছিলেন। কিন্তু পরে মুসলমান হয়ে বাকী জীবন অতিবাহিত করেন।

উমর রা. এর পরে খলিফা নির্বাচন কিভাবে হয়, পড়ুন

সন্তানগণ

হযরত উসমান ইবনে আফফান রা. এর  সন্তান ছিল ১৬ জন। তাদের মধ্যে ৯ জন পুত্র এবং ৭ জন কন্যা।

হযরত উসমান রাঃ এর স্ত্রী

নয়জন পুত্র যথাক্রমে:

১. আব্দুল্লাহ রা.। তার মা ছিলেন নবীজির কন্যা রুকাইয়া রা.। হিজরতের দুই বছর পূর্বে তার জন্ম। তিনি বাবা-মায়ের সাথে মদিনায় হিজরত করেন। শৈশবে একটি মোরগ তার চোখের পাশে ঠোকর দেয়। এর ফলে তিনি মারাত্মক আহত হন। এই আঘাতের ফলেই প্রভাব পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। এই অসুখে ৪র্থ হিজরীতে তিনি ইন্তিকাল করেন। তখন তার বয়স ছিল ৬ বছর।

২. আব্দুল্লাহ আল আসগার রহ.। তার মা ছিলেন ফাখতা বিনতে গাজওয়ান।

৩. আমর রহ.। তার মায়ের নাম ছিল আমর বিনতে জুনদুব। তিনি তার পিতার নিকট হতে হাদীস বর্ণনা করেছেন। ৮০ বছর বয়সে তিনি ইন্তিকাল করেন।

৪. খালিদ রহ.। তার মায়ের নাম ছিল আমর বিনতে জুনদুব।

৫. আবান রহ.। তার মায়ের নাম ছিল আমর বিনতে জুনদুব। তিনি ছিলেন ফিকাহ্ শাস্ত্রের ইমাম। আব্দুল মালিক ইবনে মারওয়ানের শাসনামলে তিনি মদীনার গভর্নর ছিলেন। তিনি ১০৫ হিজরীতে ইন্তিকাল করেন।

৬. উমর রহ.। তার মায়ের নাম ছিল আমর বিনতে জানদুব।

৭. ওয়ালিদ রহ.। তার মায়ের নাম ছিল ফাতিমা বিনতে ওয়ালিদ মাখজুমী।

৮. সায়িদ রহ.। তার মায়ের নাম ছিল ফাতিমা বিনতে ওয়ালিদ মাখজুমী। মুয়াবিয়া রা. এর শাসনামলে ৫৬ হিজরীতে তিনি খোরাসানের গভর্নর ছিলেন।

৯. আবদুল মালিক রহ.। তার মায়ের নাম ছিল বানিন বিনতে উয়াইনা। বাল্যকালেই তিনি ইন্তিকাল করেন।

উসমান রা. এর জন্ম ও বংশপরিচয় পড়ুন

সাতজন কন্যা যথাক্রমে:

১. মারইয়াম রহ.। তার মায়ের নাম ছিল আমর বিনতে জুনদুব।

২. উম্মে সায়িদ রহ.। তার মায়ের নাম ছিল ফাতিমা বিনতে ওয়ালিদ মাখজুমী।

৩. আয়েশা রহ.। তার মায়ের নাম ছিল রামলা বিনতে শায়বা রহ.।

৪. উম্মে আবান রহ.। তার মায়ের নাম ছিল রামলা বিনতে শায়বা রহ.।

৫. উম্মে আমর রহ.। তার মায়ের নাম ছিল রামলা বিনতে শায়বা রহ.।

৬. মারইয়াম রহ.। তার মায়ের নাম ছিল নায়লা বিনতে ফুরাফিসা।

৭. উম্মুল বানিন রহ.। তার মা ছিলেন একজন উম্মুল ওয়ালাদ (মায়ের মর্যাদাপ্রাপ্ত দাসী)।

তথ্যসুত্র

উসমান ইবনু আফফান রা.। পৃষ্ঠা ৩৩-৩৬

নাস্তিকদের প্রশ্নের উত্তর: রাসূল সা. কি কোলের শিশুর উপর আকৃষ্ট হয়ে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন? পড়ুন

কুরআনের আয়াত সংখ্যার ভিন্নতা কি কুরআনের ত্রুটি? পড়ুন

গাজ্জার জন্য অনুদান

৭ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে তুফানুল আকসা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জায় অসংখ্য মানুষ আহত ও শহীদ হয়েছে। বহু মানুষ নিজেদের ঘর-বাড়ী হারিয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে গাজ্জার ৯৮% মানুষ অনাহারে জীবন-যাপন করছে। গাজ্জার মানুষের এই দুঃসময়ে আমরা যদি তাদের পাশে না দাঁড়াই তাহলে কে দাঁড়াবে?

আর-রিহলাহ ফাউন্ডেশন তুফানুল আকসা যুদ্ধের শুরু থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জার জন্য ডোনেশন সংগ্রহ করে আসছে। এই মহান কাজে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন।

অনুদান দিন

Scroll to Top