গাজ্জার জন্য অনুদান

৭ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে তুফানুল আকসা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জায় অসংখ্য মানুষ আহত ও শহীদ হয়েছে। বহু মানুষ নিজেদের ঘর-বাড়ী হারিয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে গাজ্জার ৯৮% মানুষ অনাহারে জীবন-যাপন করছে। গাজ্জার মানুষের এই দুঃসময়ে আমরা যদি তাদের পাশে না দাঁড়াই তাহলে কে দাঁড়াবে?

আর-রিহলাহ ফাউন্ডেশন তুফানুল আকসা যুদ্ধের শুরু থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জার জন্য ডোনেশন সংগ্রহ করে আসছে। এই মহান কাজে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন।

অনুদান দিন

ইসলাম কি এমন প্রশ্ন মনে আসলে প্রথমেই এর উত্তর হবে, ইসলাম হলো একটি ধর্ম। যাতে রয়েছে একজন ব্যক্তির পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা।

পৃথিবীর শুরু থেকেই আল্লাহ তা’আলা বিভিন্ন নবীদের উপর বিভিন্ন ধর্ম ও শরিয়ত দিয়েছেন। যেমন:

হযরত মুসা আ. কে তাওরাত দিয়েছেন। উনার অনুসারীদেরকে বলা হয়, ইহুদি।

হযরত ঈসা আ. কে ইনজিল কিতাব দিয়েছেন। উনার অনুসারীদেরকে বলা হয় খৃস্টান।

তেমনি হযরত মুহাম্মাদ সা. কে আল্লাহ তা’আলা সর্বশ্রেষ্ঠ কিতাব কুরআন দিয়েছেন। আর নবীজি সা. এর অনুসারীদেরকে বলা হয় মুসলমান।

আর নবীজি যেই শরীয়ত নিয়ে এসেছেন, তাকে বলা হয় ইসলাম। ইসলামের শ্রেষ্ঠত্ব সম্পর্কে আল্লাহ তা’আলা পবিত্র কুরআনে বলেন,

إِنَّ الدِّينَ عِندَ اللّهِ الإِسْلاَمَ

ইসলাম কেবল একটি ধর্ম নয় বরং এটি একটি পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থা।

এটা শুধু মুসলিমদের জন্য প্রযোজ্য তা নয়; বরং গোটা বিশ্ববাসীর জন্য অবতীর্ণ। (সূরা আলে ইমরান, আয়াত ১৯)

ইসলাম কি এই সম্পর্কে জিবরাইল আ. এর মন্তব্য

একবার নবীজির নিকট হযরত জিবরাইল আ. মানুষের বেশে আসলেন এবং তাকে বেশ কিছু প্রশ্ন করলেন। এটি মুসলিম শরীফের ৮ নং হাদীসে বর্ণিত আছে।

(হাদীসটি শাব্দিকভাবে বর্ণনা না করে সারমর্ম আকারে বর্ণনা করা হচ্ছে। মূল হাদীসটি মেশকাত শরীফ বা মুসলিম শরীফ থেকে দেখে নিন।)

একবার জিবরাইল আ. এসে নবীজিকে জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! ইসলাম কি জিনিষ?

তখন নবীজি সা. বললেন, ইসলাম হলো অন্তরে এই সাক্ষ্য দিবে যে, আল্লাহ এক এবং তিনি ব্যতিত কোনো ইলাহ নেই।

আর মুহাম্মাদ সা. আল্লাহর বান্দা ও রাসূল। আর তুমি সালাত তথা নামাজ আদায় করবে। রমজান মাসে সিয়াম তথা রোজা রাখবে।

নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকলে যাকাত আদায় করবে। হজের সামর্থ্য থাকলে হজ করবে। তখন জিবরাইল আ. বললেন, হ্যাঁ। আপনি ঠিক বলেছেন।

বাংলাদেশে ইসলামের আগমণ

প্রাচীনকালেই বাংলাদেশে ইসলামের আগমণ ঘটে। আর তা ঘটেছিল আরব বণিকদের হাত ধরে। তারা বানিজ্যের জন্য সমুদ্রপথে চীনে যাতায়াত করতো।

সে সময় তারা এ দেশের চট্টগ্রাম সহ আরো অনেক স্থানে নোঙর করতো। স্থানীয়রা তাদের আচরণে মুগ্ধ হতো। কারণ, তারা মানুষকে বিভক্ত করতো না।

তারা মানুষের মাঝে পার্থক্য করতো না। তাই স্থানীয়রা সহ অনেকেই মুসলমান হয়ে যেত।

ধারণা করা হয়, এ দেশে নবীজির ৫ জন সাহাবী তথা:

1. আব্দুল্লাহ ইবনে আব্দুল্লাহ উতবান রা. 2. আসিম ইবনে আমর তামিমী রা. 3. সুহার বিন আদি রা. 4. সুহাইল বিন আলী রা. 5. হাকাম বিন আবুল আস সাকাফি রা. আগমন করেছিলেন।

তাদের প্রভাব আস্তে আস্তে এ দেশের অভ্যন্তরে ছড়িয়ে পড়ে। মানুষ তাদের নিকট ইসলাম শিক্ষা করে।

এ দেশে তাদের মাধ্যমে অনেক তাবেয়ীর উত্থান হয়। তারা মানুষকে আরো ভালোভাবে ইসলামের বার্তা তুলে ধরে।

ইসলাম কি

ইসলাম হলো এই সাক্ষ্য দিবে আল্লাহ ব্যতিত কোনো ইলাহ নেই। মুহাম্মাদ সা. আল্লাহর রাসূল। নামাজ কায়েম করবে। যাকাত দিবে। রোজা রাখবে। হজ করবে

ইসলাম শব্দের অর্থ কি

ইসলাম শব্দের অর্থ আত্মসমর্পন। আল্লাহর নিকট পূর্ণভাবে আত্মসমর্পন করা হয় বিধায় আমাদের ধর্মকে ইসলাম বলা হয়।

গাজ্জার জন্য অনুদান

৭ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে তুফানুল আকসা যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জায় অসংখ্য মানুষ আহত ও শহীদ হয়েছে। বহু মানুষ নিজেদের ঘর-বাড়ী হারিয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে গাজ্জার ৯৮% মানুষ অনাহারে জীবন-যাপন করছে। গাজ্জার মানুষের এই দুঃসময়ে আমরা যদি তাদের পাশে না দাঁড়াই তাহলে কে দাঁড়াবে?

আর-রিহলাহ ফাউন্ডেশন তুফানুল আকসা যুদ্ধের শুরু থেকেই ফিলিস্তিনের গাজ্জার জন্য ডোনেশন সংগ্রহ করে আসছে। এই মহান কাজে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন।

অনুদান দিন

Scroll to Top